উবুন্টুতে ব্রডব্যান্ড সংযোগ স্থাপন (Auto, Static এবং PPPOE)

উবুন্টু ইনস্টলের পরপরই ইন্টারনেট সংযোগ চালু করে নেয়া উচিত। বিভিন্ন সফটওয়্যার ইনস্টল বা কনফিগার করার জন্য ইন্টারনেট সংযোগ প্রয়োজন হতে পারে। নিচে বিভিন্ন ধরনের ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগ ব্যবহারের পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা করা হল।

যে ধরনের কানেকশন নিয়ে ব্যবহার দেখানো হবে:

  • অটো ইথারনেট (Auto Ethernet)ব্রডব্যান্ড সংযোগ
  • স্ট্যাটিক আইপি (Ststic IP)
  • DSL বা PPPOE কানেকশন ব্যবহার করা
  • DSL বা PPPOE কানেকশন কনফিগার (টারমিনাল থেকে)

ব্রডব্যান্ড সংযোগ স্থাপন (Auto Ethernet)

অনেকক্ষেত্রেই ব্রডব্যান্ড সংযোগ চালু করতে বিশেষ কোন ধরনের কনফিগার করতে হয়। সাধারণত হার্ডওয়্যারের ম্যাক অ্যাড্রেস পরীক্ষা করে এই ধরনের কানেকশন দিয়ে থাকে ইন্টারনেট সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানসমূহ। উবুন্টুতে এই ধরনের কানেকশন সাধারণত সয়ংক্রিয়ভাবেই চালু হয়ে যায়। তবে কোন কারনে যদি চালু না হয় তবে উপরের প্যানেলের নেটওয়ার্ক কানেকশন আইকনটিতে ক্লিক করে মেনু থেকে Auto eth0 নির্বাচন করুন। প্রয়োজনে কম্পিউটার রিস্টার্ট করুন।

ব্রডব্যান্ড সংযোগ স্থাপন (Static)

কোন কোন আইএসপি কোম্পানি ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট কানেকশন দেয়ার সময় IP address, Subnet, Default Getway, DNS ইত্যাদি ম্যানুয়ালী নির্দিষ্ট করে দেয়। প্রথমবার ইন্টারনেট কানেকশন কনফিগার করার সময় এগুলি নির্দিষ্ট করে দিতে হয়। তাই কনফিগার করার আগেই আপনার ইন্টারনেট কানেকশনের বিবরনীগুলি হাতের কাছে রাখুন।  Network Connections অপশন থেকে এই ধরনের কানেকশন কনফিগার করা যাবে। একাজটি করার জন্য প্রথমে উবুন্টু ডেক্সটপের উপরের প্যানেল থেকে System >> Preferences >> Network Connections নির্বাচন করতে হবে। এবার

  • Network Connections উইন্ডোর Wired ট্যাব থেকে Add বাটন চাপতে হবে।
  • এডিট উইন্ডোর তৃতীয় ট্যাব IPv4 Setting থেকে Method হিসাবে Manual নির্বাচন করতে হবে।
  • এবার Add বাটন চেপে Address (IP Address), Netmask (Subnetmask), Getway (Default Getway) , DNS সার্ভারের ঠিকানা লিখতে হবে।
  • একাধিক DNS ঠিকানা ব্যবহার করতে হলে কমা ব্যবহার করে পরপর লিখতে হবে । যেমন 123.21.12.1,132.12.21.5 ।
  • সঠিকভাবে ঠিকানাগুলি লিখে Apply বাটনটি চাপতে হবে।

ব্রডব্যান্ড সংযোগ স্থাপন (DSL বা PPPoE) পদ্ধতি-১

আপনার ইন্টরনেট কানেকশন যদি PPPoE অর্থাৎ Point-to-Point Protocol over Ethernet হয় তাহলে নিচের পদ্ধতি অনুসরন করে আপনি আপনার ইন্টারনেট কানেকশন সচল করতে পারেন।

সংযোগটি PPPoE কিনা তা বোঝার একটি উপায় হল আপনার ইন্টারনেট সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানটি আপনাকে কোন IP address, subnet mask, Getway address ইত্যাদি দিবে না ; শুধুমাত্র User Name এবং Password দিবে যার মাধ্যমে প্রতিবার কম্পিউটার চালু করে আপনাকে ইন্টারনেট সংযোগটি সচল করতে হবে। তাছাড়া আপনার ইন্টারনেট সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকেও আপনি সংযোগটির ধরন জেনে নিতে পারেন।

System >> Preferences >> Network Connections নির্বাচন করলে Network Connections শিরনামের নতুন একটি উইন্ডো চালু হলে সেখান থেকে ৫ম বা সবথেকে শেষের ট্যাব হল DLS ওপেন করতে হবে। নতুন সংযোগ স্থাপনের জন্য Add বাটনটি চাপতে হবে। এবার Username এবং Password এর স্থানে সঠিক পাসওয়ার্ড লিখতে হবে। Service এর স্থানে কিছু না লিখলেও চলবে। MAC address লিখার প্রয়োজন হলে Wired ট্যাব-এ লিখার অপশন পাওয়া যাবে।

ব্রডব্যান্ড সংযোগ স্থাপন (DSL বা PPPoE) পদ্ধতি-২

প্রথমে Applications >> Accessories >> Terminal থেকে Terminal ওপেন করুন এবং sudo pppoeconf লিখে Enter কী চাপুন।এবার আপনার root password লিখতে হবে। আপনার password লেখার সময় আপনি কোনো অক্ষর দেখতে পাবেন না। কিন্তু শুধুমাত্র সঠিক password লেখতে পারলেই পরের ধাপে যাওয়া যাব।

সঠিকভাবে root password লেখা শেষ হলে আপনাকে আপনার ইথারনেট সংযোগ গুলার নাম দেখানো হবে এবং জানতে চাওয়া হবে আপনার আর কোন সংযোগ আছে কিনা। ঐ তালিকার বাইরে আপনার যদি আর কোনো সংযোগ না থাকে তবে আপনি Enter কী চাপবেন।

এরপর সংযোগ গুলা চেক করা হবে এবং সচল সংযোগটি চিহ্নিত করা হবে। এরপর POPULAR OPTIONS নামে একটি ডায়লগ বক্স আসবে তখন আপনি Enter কী চাপবেন।

এরপর আপনার ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড জানতে চাওয়া হবে। আপনার ইন্টরনেট সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানটি দেয়া ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড এখানে লিখতে হবে।

এরপর আরও দুটি ডায়লগ বক্স আসবে USE PEER DNS ও LIMITED MSS PROBLEM আপনি তখন Enter কী চাপলে আরও একটি বক্স আসবে যেখানে লেখা থাকবে যে আপনার ইন্টারনেট কানেকশনটি সচল হয়েছে।

তারপর ইন্টরনেট কানেকশনটি তখনই চালু করা হবে কিনা তা জিজ্ঞাসা করা হবে।এবং ইন্টরনেট কানেকশনটি কম্পউটার অন করার সময়ই চালু করা হবে কিনা তাও জিজ্ঞাসা করা হবে।

এভাবে আপনার কানেকশনটি সচল হয়ে যাবে।

ইন্টরনেট কানেকশনটির বিস্তারিত জানতে টারমিনাল ওপেন করে লিখুন plog বা ifconfig ppp0

Advertisements

উবুন্টু ডেক্সটপ

ডেক্সটপ, স্ক্রীনের সব কিছুর পেছনে থাকে।কোন উইন্ডো ওপেন করা না হলে উপরের এবং নিচের প্যানেলের মাঝের অংশকে ডেক্সটপ বলা যেতে পারে। এখানে কোন ফাইল, ফোল্ডার, সফটওয়্যার সর্টকাট কপি করে রাখা যায়। ডেক্সটপে কপি করে রাখা হলেও এই ফাইল বা ফোল্ডার গুলা Home ফোল্ডারের ভেতর Desktop নামে সাবফোল্ডারে থাকে।

প্যানেল পরিচিতি

সাধারনভাবে উবুন্টু ডেক্সটপে উপরে ও নিচে দুটি প্যানেল থাকে। তবে এরকম সেটিং ব্যাবহার বাধ্যতামূলক না। দরকার ও প্রয়োজন অনুযায়ী প্যানেলে সংযোজন বা পরিমার্জন করা যায়। তবে এখানে ডিফল্ট প্যানেল সেটিং এর উপর আলোচনা করা হবে।

উপরের প্যানেল

উপরের প্যানেলের বাম দিকে Applications, Places, System নামে তিনটি মেনু এবং Firefox(ওয়েব ব্রউজার), Help নামে দুটি সফটওয়্যারের সর্টকাট রয়েছে। Applications মেনুতে কম্পিউটারে ইনস্টল করা সব সফটওয়্যার ক্যাটাগরি অনুযায়ী ভাগ করা থাকে। Places মেনুতে কম্পিউটারের সকল ড্রাইভ গুলা এবং হোম ফোল্ডারে যাওয়ার অপশন থাকে।System নামে যে মেনু রয়েছে সেখানে Preferences ও Administration দুটি সাব মেনু রয়েছে। কম্পিউটারের বিভিন্ন ধরনের পরিবর্তন করার কাজসমূহ করতে হবে এই মেনু থেকে। এখানে Help and Support নামে যে অপশন রয়েছে সেখানে উবুন্টু সংক্রান্ত সাহায্য পাওয়া যাবে।

প্যানেলটির ডান দিকে রয়েছে নোটিফিকেশন আইকন, ভলিয়্যুম কন্ট্রলার, ক্যালেন্ডার, ঘড়ি। এরপর থাকে কম্পিউটার বন্ধ, রিস্টার্ট, ব্যাবহারকারী পরিবর্তন করার জন্য একটি আইকন।


নিচের  প্যানেল




বর্তমানে যে অ্যাপলিকেশন সমূহ চালু করা আছে সেগুলির নিচের প্যানেলে দেখা যায়। প্যানেলের বাম পাশে Show Desktop নামের বাটনটি ব্যবহার করে সকল উইন্ডো একসাথে মিনিমাইজ বা ম্যাক্সিমাইজ করা যাবে। ডানের অংশে ওয়ার্কস্পেস পরিবর্তন করার অপশন এবং ট্র্যাশ থাকে।


উবুন্টু ১০.০৪ ইনস্টল করা [লাইভ সিডি অথবা ইউএসবি থেকে]

উবুন্টু ওয়েবসাইট থেকে উবুন্টু লাইভ সিডি ডাউনলোড করার অপশন দেয়া থাকে। ডাউলোডের পর এটি সিডিরম ড্রাইভে বার্ণ করে অথবা ইউএসবি ড্রাইভ বুটেবল হিসাবে তৈরী করে ব্যবহার করা যায়।   লাইভ সিডি হল এমন একটি পদ্ধতি যার মাধ্যমে ইনস্টল না করেও অপারেটিং সিস্টেমটি ব্যবহার করা যায়। কিন্তু নিয়মিত ব্যবহার করতে চাইলে কম্পিউটারে ইনস্টল করেই ব্যবহার করা উচিত। নিচের পদ্ধতি অনুযায়ী কম্পিউটারে উবুন্টু ইনস্টল করে উইন্ডোজের পাশাপাশি ব্যবহার করা যাবে।

ইনস্টল করার পূর্বে কয়েকটি বিষয় খেয়াল রাখা উচিৎ

*  কম্পিটারের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য গুলা অন্য কোথাও কপি করে রাখা উচিৎ। এটা ৯৯.৯৯% নিশ্চিত যে কম্পিউটারে সংরক্ষিত তথ্যের কোন প্রকারের কোন ক্ষতি হবে না, তবে ১০০ ভাগ নিশ্চিত হতে আপনি এ কাজটি করতে পারেন।

* কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক কিভাবে পার্টিশন করবেন তা আগে থেকে ঠিক করে রাখা।

* নির্ধারিত পার্টিশন সহজে খুঁজে পেতে পার্টিশনটির আকার এবং ব্যবহৃত অংশ কোথাও লিখে রাখুন।

ইনস্টল শুরু করা

উবুন্টু ইনস্টল করার জন্য প্রথমে উবুন্টু সিডি অথবা লাইভ ইউএসবি ড্রাইভটি কম্পিউটারে সংযুক্ত করে রিস্টার্ট করতে হবে। এখানে একটি বিষয় লক্ষ রাখতে হবে যে ফার্স্ট বুট অবশ্যই সিডিরম ড্রাইভ/ ইউএসবি হতে হবে। ফার্স্ট বুট হার্ডডিস্ক হলে আবার উইন্ডোজই চালু হব।ফার্স্ট বুট হার্ডডিস্ক দেয়া থাকলে বায়স থেকে তা পরিবর্তন করে নিতে হবে। Esc, F1, F2, F12, Delete ইত্যাদি সুইচ চেপে বায়স সেটিং-এ প্রবেশ করতে হয়। কোন সুইচ চেপে বায়স এ যেতে হব তা সাধারনত কম্পিউটার অন হওয়ার সময় দেখায়। ইউএসবি ড্রাইভ থেকে বুট চালু করার জন্য প্রাথমিক বুট ডিভাইস হিসাবে ইউএসবি নির্বাচন করতে হবে । এই অংশটি না থাকলে প্রাথমিক ড্রাইভ হার্ডডিস্ক দিতে হবে এবং হার্ডডিস্ক সমূহের মধ্যে ইউএসবি এর ক্রম উপরে থাকতে হবে।

যদি ফার্স্ট বুট সিডি দেয়া থাকে তবে আপনি নিচের মত উইন্ডো দেখতে পাবেন, এখান থেকে ভাষা নির্বাচন করতে হয়। ইংরেজী ভাষার পাশাপাশি বাংলাতেও ব্যবহারের অপশন পাওয়া যাবে এখানে।

Try Ubuntu without any change to your computer (প্রথম অপশন) অপশনটি ব্যবহার করে ইনস্টলের পূর্বে লাইভ সিডিটির মাধ্যমে উবুন্টু ব্যবহার করা যাবে।  সেখান থেকে Install Ubuntu 10.04 LTS নামের আইকনটি চালু করুন। লাইভসিডি থেকে উবুন্টু ব্যবহার করার সময় কিছু কিছু কাজ করার সময় অতিরিক্ত কিছু সময় লাগতে পারে। যেহেতু প্রতিটি কাজ সিডিরম থেকে মেমরীর উপর ভিত্তি করে চালানো হয় তাই এই সমস্যা হতে পারে। উবুন্টু লাইভ সিডি চালানো হলে ডেক্সটপে ইনস্টল নামে একটি বাটন থেকে যেটি ব্যবহার করে ইনস্টল করতে হবে।

এরপর সিডি থেকে ইনস্টলের প্রয়োজনীয় কাজ হতে থাকবে যা প্রগ্রেস বারের মাধ্যমে দেখানো হবে। এরপর আপনাকে কতগুলা প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। যেমন কোন ভাষায় উবুন্টু ইনস্টল করতে চান, আপনার অবস্থান কোথায়, কী-বোর্ড লেয়াউট কেমন হবে ইত্যাদি। এটি আপনার প্রথম উবুন্টু ইনস্টল হলে আপনার উচিৎ ইনস্টলের ভাষা বাংলা নির্বাচন করা এর ফলে পরবর্তী ধাপগুলি আপনার বুঝতে সুবিধা হবে। তবে বাংলাতে ইনস্টল করা হলেও ইংরেজীতে ব্যবহারের অপশন সয়ংক্রিয়ভাবে যুক্ত হয়ে যাবে।
ভাষা বাংলা নির্বাচন করা হলে সয়ংক্রিয়ভাবে ঘড়ি বাংলাদেশ সময়ের সাথে সমন্বয় করা হবে। এবং আপনার অবস্থান বাংলাদেশ হিসাবে চিহ্নিত করা হবে। এর পরবর্তী ধাপ “কীবোর্ড লেআউট নির্বাচন করা” । এখানে সয়ংক্রিয়ভাবে বাংলাদেশের জাতীয় কীবোর্ড লেআউট নির্বাচন করা থাকবে । তবে এটি পরিবর্তন করে USA লেআউট নির্বাচন করতে হবে । কারণ বাংলাদেশের সকল কীবোর্ড USA লেআউট অনুযায়ী তৈরী করা হয়। কীবোর্ড লেআউট নির্বাচনের পরের ধাপটি হল হার্ডিস্ক পার্টিশন করা ।

উপরের বিষয়গুলা ঠিকমত শেষ হলে হার্ডডিস্ক পার্টিশন করার জন্য ৩টা অপশন দেখাবে।

১ম অপশন (প্রতিবার স্টার্টআপের সময় বেছে নেয়ার মত পাশাপাশি ইনস্টল করুন)

যারা একই সাথে উইন্ডোজ ও উবুন্টু ডুয়েলবুট হিসাবে ব্যাবহার করতে চায় এবং ইনস্টল পদ্ধতি সম্পর্কে বিস্তারিত জানা নেই তারা এই অপশন ব্যাবহার করে উবুন্টু ইনস্টল করতে পারেন। এখানে যে ড্রাইভে “উইন্ডোজ” ইনস্টল করা আছে সেই ড্রাইভের খালি অংশে উবুন্টুর জন্য আলাদা একটি পার্টিশন তৈরী করে ইনস্টল হয়। তবে C: ড্রাইভে জায়গা কম থাকলে D:, E: এর মত পরবর্তী ড্রাইভগুলিতে ইনস্টল করার পরামর্শ দেয়া হয়। তবে খালি জায়গাটুকু উবুন্ট ও উইন্ডোজ কী অনুপাতে ব্যবহার করবে তা ঠিক করে দেয়া যায়। ঐ ড্রাইভে যদি অত্যন্ত কম জায়গা থাকে তবে এর পরের ড্রাইভ পার্টিশনের জন্য বেছে নেয়া হয়।

২য় অপশন (পুরো হার্ডডিস্ক মুছে ব্যবহার করুন)

উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম মুছে যাবে এবং উবুন্টু ইনস্টল করার জন্য সম্পূর্ণ হার্ডডিস্ক ব্যবহার করা হবে। সম্পর্ণ খালি কোন হার্ডিস্কে ইনস্টলের সময়ই কেবলমাত্র এই অপশনটি ব্যবহার করা যেতে পারে। অন্যথায় কম্পিউটারে সংরক্ষিত সকল তথ্য মুছে যেতে পারে।

৩য় অপশন (নিজহাতে পার্টিশনগুলি নির্ধারণ করুন (দক্ষতর))

ম্যানুয়ালী কোন ড্রাইভে ইনস্টল করা যাবে এই পদ্ধতিতে। তবে এভাবে ইনস্টল করতে চাইলে ইনস্টল প্রক্রিয়া সম্পর্কে কিছু ধারনা থাকতে হবে। যেমন লিনাক্সে ইনস্টলের ড্রাইভ ছাড়াও swap নামে আলাদা একটি ড্রাইভ তৈরী করতে হয়। এটি হার্ডডিস্কের একটি অংশ হলেও প্রযোজন অনুযায়ী এটি   ভার্চুয়াল মেমরীর মত কাজ করে থাকে। এই অপশনটি ব্যবহার করে ইনস্টল করা হলে নিশ্চিত হতে হবে আপনি কোন ড্রাইভে ইনস্টল করতে চান। প্রয়োজনে আগে থেকেই সেই ড্রাইভটি খুলি করে রাখতে পারেন।

এখন ৩য় অপশনটি ব্যবহার করে ইনস্টল পদ্ধতি দেখানো হবে

৩নম্বর অপশনটি সিলেক্ট করে Forward কী চাপলে হার্ডডিস্ক এর সবগুলা পার্টিশন এর নাম দেখাবে। তবে এখানে উইন্ডোজের মত Partition 1, Partition 2. . . ইত্যাদি দেখাবে না, লেখা থাকবে /dev/sda1, /dev/sda5, /dav/sda6. . ., অথবা /dev/hda1, /dev/hda5, /dav/hda6. . . ইত্যাদি , এখানে /dev/hda1 হল C ড্রাইভ,/dev/hda5 হল D ড্রাইভ,/dev/hda6 হল E ড্রইভ। মূলত /dev/sda5 হবে D ড্রাইভ এবং এরপর থেকে /dev/sda6,/dev/sda7,/dev/sda8 হবে যথাক্রমে E,F,G ড্রাইভ। নিশ্চিত হতে ড্রাইভের আকার এবং ব্যবহৃত অংশের পরিমান দেখা যেতে পারে। এভাবে আপনার কাঙ্খিত ড্রাইভটা সিলেক্ট করে পার্টিশনটা Delete করুন। তখন জায়গাটুকু Free Space হিসাবে দেখাবে।

আপনি যদি উইন্ডোজ ব্যবহারকারী হন তবে সবচাইতে ভালো হয় যদি আপনি উইন্ডোজ থেকে নির্দিষ্ট ড্রাইভটি আগে থেকেই ফরম্যাট করে দুটি আলাদা ড্রাইভ হিসাবে তৈরী করে রাখেন। দুটি ড্রাইভের একটি নূন্যমত ৫ গিগাবইট জায়গা দিন এবং অপরটি ১গিগাবাইট জায়গা দিয়ে তৈরী করতে পারেন।  যদিও উবুন্টু ইনস্টলের সময় এই কাজটি করা যাবে তবে প্রথমবার ইনস্টল করার সময় অথবা নিশ্চিত ভাবে ইনস্টল করতে এই কাজটি করতে পারেন।

উইন্ডোজ থেকে ড্রাইভ তৈরী করা না থাকলে উবুন্টু ইনস্টলের সময় এই কাজটি করার পদ্ধতিটি দেখানো হচ্ছে।

এবার কম্পিউটারের RAM এর দ্বিগুন সাইজের(RAM 256 হলে 512) Swap নামে একটা ড্রাইভ বানাতে হবে। তবে RAM ১গিগাবাইট বা এর বেশী হলে এজন্য swap এর জন্য ১গিগাবাইট বা এর কম জায়গা ব্যবহার করতে পারেন। Free Space সিলেক্ট করে Add ক্লিক করুন। “নতুন পার্টিশনের আয়তন” এ RAM এর দ্বিগুন পরিমান লিখুন, “যেভাবে ব্যবহার করা হবে” এর পাশের ড্রপ ডাউন লিস্ট হতে swap area(সোয়াপ স্থান) সিলেক্ট করে OK করুন।

অবশিষ্ট Free space আবার সিলেক্ট করে আবার Add ক্লিক করুন। “নতুন পার্টিশনের আয়তন” এ নূন্যতম 5000 লিখুন, “যেভাবে ব্যবহার করা হবে“ এর পাশের ড্রপ ডাউন লিস্ট হতে ext3, “মাউন্ট পয়েন্ট” এর পাশের ড্রপ ডাউন লিস্ট হতে / সিলেক্ট করে Ok করুন। সেই সাথে পার্টিশন ফরম্যাট করো এর পাশের বক্সে টিক চিহ্ন দিন।
পার্টিশন শেষ হওয়ার পর তালিকাটি নিচের মত দেখা যাবে।
হার্ডডিস্ক পার্টিশন করার পর আপনার নাম, ব্যাবহারকারীর নাম(যে নামে লতইন করতে চান) ও পাসওয়ার্ড(Password) লিখতে হবে। পাসওয়ার্ড ৮ অক্ষরের কম হলে বা খুবই সহজ পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা হলে একটি সতর্কতা বার্তা দেখাতে পারে।
উইন্ডোজ এর কোন ব্যাবহারকারীর নিজেস্ব সেটিং বা উইন্ডোজের  My Documents ফোল্ডারে সবকিছু উবুন্টুতে ইম্পোর্ট করতে চান কিনা তা জানতে চাওয়া হবে। উবুন্টু থেকে উইন্ডোজের সকল ফাইল ব্যবহার ও সম্পাদনা করা যায়, তাই কোন ফাইল ইম্পোর্ট করার কোন প্রয়োজন নেই।
এর পরবর্তী ধাপে আপনাকে জানানো হবে আপনি ভাষা, কী-বোর্ড লেয়াউট, লগইন নাম, অবস্থান ইত্যাদি বিষয়ে কী কী নির্বাচন করেছেন। এই উইন্ডোর “ইনস্টল” বাটনে ক্লিক করলে ইনস্টল শুরু হবে।  ইনস্টলের বিভিন্ন পর্যায়ে উবুন্ট কি , এটি ব্যবহারের সুবিধা এবং বিভিন্ন সফটওয়্যারের বৈশিষ্টগুলি দেখানো হয়। ইনস্টল শেষ হলে নতুন একটি উইন্ডো দেখা যাবে । সেখানে জানানো হবে ইনস্টল সম্পন্ন এবং লাইভ সিডি পরীক্ষা চালিয়ে যেতে চান কিনা তা জানতে চাওয়া হবে। সেখান Restart Now বাটনে ক্লিক করতে হবে। এরপর থেকে প্রতি বার কম্পিউটার চালু করার সময় উবুন্টু এবং উইন্ডোজ নির্বাচন করার অপশন থাকবে।

সংগ্রহ করুন উবুন্টু ও লিনাক্সের টিশার্ট!

বাংলাদেশের উবুন্টু ও লিনাক্স প্রেমীদের জন্য দারুণ খবর। উবুন্টু বাংলাদেশের উদ্যোগে উবুন্টুর প্রচার ও প্রসারের উদ্দেশ্যে তৈরি করা হয়েছে বেশ কিছু টিশার্ট। আগ্রহী ব্যক্তিদের shahriar(at)linux(dot)org(dot)bd ঠিকানায় ইমেইল করে টিশার্ট সংগ্রহের দিনক্ষন নিশ্চিতের জন্য অনুরোধ করা হলো (ইমেইলের জবাব পেতে ২৪ ঘন্টা সময় লেগে যেতে পারে)। বিস্তারিত খবরাখবর পাওয়া যাবে এইখানে

বিভাগ:খবরাখবর

উবুন্টু ১০.০৪ ( ল্যুসিড লিংক্স )এ বহুভাষী কোরআন সফটওয়্যার Zekr.

উবুন্টু ১০.০৪ তে একটি বিশাল পরিবর্তন আনা হয়েছে উবুন্টু সফটওয়্যার সেন্টারে। অনেক নতুন সফটওয়্যার যোগ করা হয়েছে এতে।

আজ হঠাত্ করেই সফটওয়্যার সেন্টারে সার্চ দিলাম quran লিখে, দেখলাম Zekr সফটওয়্যারটি এড করা হয়েছে। যে সফটওয়্যারটি আমি উবুন্টু ৯.০৪ তে অনেক চেষ্টা করেও ডাউনলোড করতে পারিনি। আর উবুন্টু ১০.০৪ থেকে খুব সহজেই ডাউনলোড করে নিলাম ও পাশাপাশি এড করে নিলাম বাংলা ও ইতালিয়ান অনুবাদ।

কেউ যদি ডাউনলোড করতে চান তাহলে…

ডাউনলোড :

Applacations – Ubuntu Software Center তারপর সার্চ বক্সে লিখুন quran

ইনস্টল করুন এই সফটওয়্যার দুটি, ব্যস হয়ে গেল ডাউনলোড।
এখন সফটওয়্যারটি পাবেন : Applacatins – Islamic Software – Zekr


বাংলা অনুবাদ এড
আলহামদুলিল্লাহ, মাওলানা মুহিউদ্দিন খানের কোরআনের বাংলা অনুবাদটি এই সফটওয়্যারের সাথে ব্যবহার করা যাবে।

এখান থেকে ডাউনলোড করুন বাংলা অনুবাদের জিপ ফাইলটি। সফটওয়্যারটি ওপেন করে তারপর Tools – Add- Translation গিয়ে বাংলা অনুবাদটি এড করুন।
আরবীর সাথে বাংলা অনুবাদকে ডিফন্ট করে রাখতে চাইলে View – Tranlation [bn_BD] মাওলানা মুহিউদ্দিন খান সিলেক্ট করুন।

কেউ যদি ইংরেজী অনুবাদটি ও আরবীর পাশাপাশি রাখতে চান তাহলে এখান থেকে ডাউনলোড করুন ইংরেজী অনুবাদের ফাইলটি।

আরবী বাংলা ও ইংরেজী ভাষা এক সাথে দেখতে চাইলে :
View – Tranlation- Configure Custom Tranlations এ গিয়ে Abdullah Yusufali – en_US ও মাওলানা মুহিউদ্দিন খান – bn_BD এড করুন।

বাংলা লেখা ছোট দেখালে : Tools – Options- View তে গিয়ে trans_fa_fontSize এর 11 কে 13 অথবা 14 করে দিন। তাহলেই বাংলা লেখা সুন্দর দেখতে পাবেন।

বি.দ্র : সফটওয়্যারটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে ও সফটওয়্যারটি উইন্ডোজের ডাউনলোড ও কনফিগারেশন এর নিয়ম কানুন দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

উইন্ডোজ এবং লিনাক্স থেকে উবুন্টু আইএসও ইমেজ (.iso) সিডিতে বার্ণ করা

উবুন্টু ওয়েব সাইট থেকে বিনামূল্যে উবুন্টু সংগ্রহ করা যায়। মূল সাইট www.ubuntu.com অথবা http://www.ubuntu.com/getubuntu/download পাতা থেকে ডাউনলোড করার অপশন পাওয়া যাবে। Download Location  এর স্থানে আপনি যে দেশ থেকে ডাউনলোড করছেন সেই দেশের নাম নির্বাচন করতে হবে। তালিকায় সেই দেশের নাম না থাকলে সেই দেশের নিকটবর্তী দেশের নাম ব্যবহার করতে হবে। যেমন Download Location এর তালিকায় বাংলাদেশের নাম নেই । সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ থেকে ডাউনলোড করার সময় আপনার লোকেশন হিসাবে India, China এর মত কাছাকাছি কোন দেশের নাম নির্বাচন করতে হবে। তবে সরাসরি ডাউনলোড করার থেকে টরেন্ট ব্যবহার করে ডাউনলোড করা হলে সহজেই খুব দ্রুত ডাউনলোড হয়ে যায়।

উবুন্টু সিডি ইমেজ ফাইল হিসাবে ডাউনলোড করতে হয়। এই ইমেজ ফাইলগুলি ISO ফরম্যাটে থাকে। অন্যান্য ডাটা ফাইলের মত ISO ইমেজ সরাসরি কপি পেস্ট করে সিডিটে বার্ণ করা যায় না। নির্দিষ্ট পদ্ধতি অনুসরণ করে ISO ফাইলটি সিডিতে এক্সট্রাক্ট করতে হয়। অন্য কোন পদ্ধতিতে সিডি বার্ণ করা হলে সেই সিডি থেকে উবুন্টু ইনস্টল করা যাবে না। সিডি থেকে উবুন্টু ইনস্টল করতে হলে ডাউনলোড করা ISO ফাইলটি সঠিক পদ্ধতিতে সিডিতে বার্ণ করতে হবে। প্রয়োজনে বার্ণ করার আগে আইএসও ফাইলটি পরীক্ষা করে দেখে নিতে পারেন।  সিডি বার্ণ করার কাজটি করার জন্য যা প্রয়োজন হবে

* একটি সচল সিডি/ ডিভিডি বার্নার

* একটি ৮০ মিনিট (৭০০ মেগাবাইট) ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন সিডি

বাহনযোগ্য তথ্য সংরক্ষনের মাধ্যম সমূহের মধ্যে সিডি সবথেকে সহজলভ্য এবং সাশ্রয়ী। এছাড়া এই ISO ফাইলটি ডিভিডিতে বার্ণ করা যাবে তবে ডিভিডিতে অনেক দ্রুত গতিতে বার্ণ করা হয় যা প্রায় সময়ই ঠিকমত কাজ করে না। এছাড়া ডিভিডি বেশ ব্যয়বহুল একটি মাধ্যম।

উইন্ডোজ 95 / 98 / ME / 2000 / XP / Server 2003 / Vista এর জন্য ব্যবহার করুন : Infra Recorder

# http://infrarecorder.sourceforge.net/ সাইট থেকে Infra Recorder নামের ফ্রী এবং মুক্ত সিডি বার্ণ করার সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করতে হবে ।

# একটি খালি সিডি আপনার সিডি বা ডিভিডি বার্ণারে প্রবেশ করান এবং Do nothing অথবা Cancel নির্বাচন করুন যদি সয়ংক্রিয়ভাবে কোন উইন্ডো ওপেন হয়।

# Infra Recorder সফটওয়্যারটি চালু করুন এবং মূল উইন্ডো থেকে ‘Write Image’ বাটনটি চাপুন।
# বিকল্পভাবে এই কাজটি করা যাবে ‘Actions’ মেনু থেকে ‘Burn image’ নির্বাচন করে ।
# যে ফাইল ব্রাউজারটি ওপেন হবে সেখান থেকে আপনার ডাউনলোড কর উবুন্টু সিডি ইমেজটি নির্বাচন করুন এবং ‘Open’ বাটনটি চাপুন।
# এরপর ‘OK’ চাপুন।

উইন্ডোজ XP / Server 2003 / Vista: ISO Recorder

# অপারেটিং সিস্টেমের উপযোগী নির্দিষ্ট সংস্করণের [[http://isorecorder.alexfeinman.com/isorecorder.htm]] সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করুন।
# আগে বার্ণ করা হয়নি এমন একটি খালি সিডি আপনার সিডি/ডিভিডি বার্ণারে প্রবেশ করান। (”’টীকা”’: ‘কেবলমাত্র উইন্ডোজ ভিস্তাতে এই সফটওয়্যারটি ব্যবহার করে ডিভিডি বার্ণ কর সম্ভব।’)
# Image File এর পাশের খালি জায়গায় ক্লিক করে ফাইল ব্রাউজার ওপেন করুন এবং সেখান থেকে আপনার উবুন্টু ISO ফাইলটি নির্বাচন করুন এবং “Next” চাপুন।

Windows 7 থেকে বার্ণ করা

# ডাউনলোড করা উবুন্টু ISO ইমেজ ফাইলটির উপর মাউসের ডান বাটন ক্লিক করুন এবং “Burn disc image” অপশনটি নির্বাচন করুন।
# আপনার সিডি/ডিভিডি বার্ণার নির্বাচন করুন এবং  “Burn” বাটন চাপুন।

উবুন্টু থেকে বার্ণ করা

উবুন্টু অপারেটিং সিস্টেম থেকে বার্ণ করার পদ্ধতিটি বেশ সহজ। আইএসও ফাইলটিতে মাউসের ডান বাটন ক্লিক করলে write to disk নামে একটি অপশন দেখা যাবে। সেটি ব্যবহার করে উবুন্টু আইএসও বার্ণ করা যাবে।

উবুন্টু ১০.০৪ এর জন্য Bisigi প্রজেক্টের ১৩ টি থিম

Bisigi প্রজেক্টের ১৩টি ব্যবহার করা যাবে গ্নোম ডেক্সটপে উবুন্টু ১০.০৪ তেও। তাদের এই থিম গুলি ব্যবহার করে আপনার ডেক্সটপে আনতে পারেন একটু ভিন্নতা।
যেভাবে ডাউনলোড করা যাবে :
প্রথমে তাদের রেপু ডাউনলোড করতে হবে। টারমিনাল খুলুন আর লিখুন :

1 sudo add-apt-repository ppa:bisigi/ppa

এখন আরেকটি কমান্ড লিখেই তাদের ১৩টি থিম একসাথে ডাউনলোড করেতে পারবেন।
‍‍

1 sudo apt-get update && sudo aptitude install bisigi-themes

থিম গুলি দেখুন System > Preferences > Appearance তে গিয়ে।

কেউ যদি সবগুলি থিম একসাথে ডাউনলোড কতে না চান তাহলে তাহলে রেপু এড করার পর প্রতিটি থিমের আলাদা আলাদা কমান্ড লিখুন।

AquaDreams:                       sudo aptitude install aquadreams-theme
Ubuntu Sunrise:                  sudo aptitude install ubuntu-sunrise-theme
Bamboo-Zen:                       sudo aptitude install bamboo-zen-theme
Step into Freedom:             sudo aptitude install step-into-freedom-theme
Tropical:                               sudo aptitude install tropical-theme
Exotic:                                  sudo aptitude install exotic-theme
Balanzan:                              sudo aptitude install balanzan-theme
Wild Shine:                          sudo aptitude install wild-shine-theme
Infinity:                               sudo aptitude install infinity-theme
Showtime:                           sudo aptitude install showtime-theme
Orange:                               sudo aptitude install orange-theme
Ellanna:                               sudo aptitude install ellanna-theme
AirLines:                            sudo aptitude install airlines-theme

Bisigi সাইটে গিয়ে পছন্দ করুন থিম।

বিভাগ:থিম